HeadLogo

অবৈধ চিড়া কাঠ পাচারকারীদের অস্ত্রের আঘাতে আহত হলেন এলাকার সুনাগরিক সহ, মা ও নাবালিকা বোন - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
১২ অক্টোবর ২০২০ 
সোমবার

পানিসাগর প্রতিনিধিঃ উত্তর ত্রিপুরা জেলার পানিসাগর মহকুমার অন্তর্গত জলাবাসা বড়বাড়ি ২ নং ওয়ার্ডের নাগরিক ও প্রশাসনকে সহযোগিতা করার মানসিকতা সম্পন্ন স্থায়ী বসবাসকারী গোপেন্দ্র মালাকার এর পুত্র  গৌরব মালাকার  গত শুক্রবার  সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায় তিনি নিজ বাড়ির  সামনে দিয়ে অবৈধ চিড়া কাঠ প্রচারকারীদের কে আটক করে স্থানীয় ফরেস্ট ডিপার্টমেন্ট কে আবগত করেন। সাথে সাথে ফরেস্ট ডিপার্টমেন্ট এর কর্মীরা ঘটনাস্থলে  আসার পূর্বেই  প্রচারকারীরা গা- ডাক  দিতে সক্ষম হয়। অবৈধ  চিড়া কাঠ  গুলিকে ফরেস্ট ডিপার্টমেন্ট সিজ করে গাড়ি বোঝাই করে নিয়ে যায়। 


পরমুহূর্তেই পাচারকারী পক্ষ নিয়ে  ফার্নিচার ব্যবসায়ী বড়বাড়ি এলাকার অপূর্ব সূত্রধর,  অমিত সূত্রধর , ননীগোপাল দেব এর  ছেলে নিলয় দেব, প্রণয় দেব, নির্মল দেব , তাদের  অবৈধ কাঠ আসার পথে গৌরব মালাকার দ্বারা প্রতিহত হওয়ার কারণে তারা দলবল সহ অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সুসজ্জিত হয়ে প্রতিবাদী গৌরব মালাকারের নিজ বাড়িতে আক্রমণ চালায়। প্রতিবাদের ভাষা নিয়ে ত্রিপুরা সরকারের ফরেস্ট ডিপার্টমেন্ট কে সহায়তা করার মানসিকতা সম্পন্ন গৌরব মালাকারকে আক্রমণ করে। গৌরব মালাকার অবস্থা বেগতিক দেখে চিৎকার চেঁচামেচি করতে থাকলে তার মা এবং নাবালিকা বোন উনার প্রাণ বাঁচাতে ছুটে আসেন। 


তখন আক্রমণকারীরা গৌরব  মালাকারের মাথায় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে এবং সাথে সাথে গৌরব মালাকার মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। ঘটনা  চলাকালীন সময়ে নিজের ছেলেকে প্রাণে বাঁচাতে তার মা উপস্থিত হলে আক্রমণকারীরা তার মাকে অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে। মার রক্তাক্ত শরীল দেখে তার নাবালিকা ছোট বোন মাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসে। তখন আক্রমণকারীরা বোনের ইজ্জত নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে শুরু করে।এমতাবস্তায় এলাকাবাসীরা জড়ো হলে আক্রমণকারীরা পালিয়ে যায়। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আহত গৌরব মালাকার ও তার মাকে জলাবাসা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য  প্রেরণ করেন। ঘটনার খবর পেয়ে পানিসাগর থানার কর্মীরা জলাবাসা হাসপাতালে উপস্থিত হন।উপস্থিত হয়ে দেখতে পান ঘটনার উভয়পক্ষই জলাবাসা হাসপাতালে চিকিৎসারত। 


খবর নিয়ে জানা যায় আক্রমণকারীরা বিগত দিনেও জলাবাসা এলাকার একজন বিশিষ্ট ক্রীড়াবিদকে আক্রমণ করার পর ক্রীড়াবিদ হসপিটালে এডমিট হলে উনারাও বাহানা করে হসপিটালে এডমিট হয়ে গিয়েছিলেন। অনুরূপ ঘটনা পর আক্রমণকারীরা জলাবাসা প্রাথমিক হসপিটালের আহত গৌরব মালাকার ও তার আহত মার পাশের সিটে বাহানা করে শুয়ে থাকেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। পানিসাগর থানার কর্মীরা সুন্দর সাজানো নাটক দেখে বিভ্রান্তিতে পড়ে যান। তাই উভয়পক্ষেরই  লিখিত অভিযোগ গ্রহন করবেন বলে থানা মহোদয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এখন দেখার বিষয় সুষ্ঠু তদন্ত সহকারে পানিসাগর থানার মহোদয়রা সুবিচার পাইয়ে দিতে  কতটুকু সাহায্য করেন।  উক্ত ঘটনার জন্য এলাকায় নিন্দার গুঞ্জন চলছে।

কোন মন্তব্য নেই