HeadLogo

মেধাবী ছাত্রী মরিনার পড়াশোনার দায়ভার নিল রোটারেক্ট ক্লাব - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
শনিবার   

ধর্মনগর প্রতিনিধিঃ রোটারী ক্লাবের অধীনস্থ নবীনদের নিয়ে গঠিত আন্তর্জাতিক সমাজসেবী সংস্থা রোটারেক্ট ক্লাব ধর্মনগরে খুবই নবীন। এই সমাজসেবী সংস্থাটি খুব কম সময়ে তাদের বিভিন্ন সেবামূলক কাজের মধ্য দিয়ে ধর্মনগরে সুখ্যাতি অর্জন করেছে।    

বছরের বিভিন্ন সময়ে এই সংস্থা বিভিন্ন রকমের সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ড নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। এই সংস্থার অধিকাংশ সদস্য-সদস্যরাই ছাত্র-ছাত্রী ও বয়সে নবীন কাজে উদ্যমী। ছাত্র হয়ে ছাত্রদের পাশে দাঁড়াতে তারা খুব আগ্রহী। বিগত বছর লকডাউন এর আগে পর্যন্ত ধর্মনগর রামকৃষ্ণ সেবা সমিতির ছাত্রাবাসের ছাত্রদের এই রোটারেক্ট সামাজিক সংস্থার সদস্য-সদস্যরা বিনে পয়সায় প্রাইভেট কোচিং করিয়েছে।


বর্তমানে লকডাউন এর কারণে তাদের এই উদ্যোগ বন্ধ। কিন্তু এখানেও থেমে থাকেনি রোটারেক্ট এর সদস্যরা। লকডাউনে করোনা সংক্রমণ থেকে জনগণ ও ছাত্র-ছাত্রীদের রেহাই দিতে তাদের উদ্যোগে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে এবং বিদ্যালয়ে সেনিটাইজেশন এর মেশিন দান করা হয়েছে। একটি মেশিন ধর্মনগর মহাকুমার বৈঠাংবাড়ি ইংলিশ মিডিয়াম এসবি স্কুলে দান করতে গেলে দেখা যায় ঐ বিদ্যালয়ে ছোট ছোট ছাত্রছাত্রীদের খেলাধুলার জন্য কোন ক্রীড়া সামগ্রী নেই। অথচ রাজ্যের ক্রীড়াঙ্গনে এই বৈঠাংবাড়ি একটি জনপ্রিয় নাম। 


এই কথা চিন্তা করেই রোটারেক্ট ক্লাবের সদস্যরা বৈঠাংবাড়ি এসবি স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে বিভিন্ন ক্রীড়া সামগ্রী তুলে দেন। আর ঐ ক্রীড়া সামগ্রী গুলো তুলে দিতে গিয়েই তাদের নজরে পরে ঐ বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী মারিনা ডারলংকে। রোটারেক্ট ক্লাবের ধর্মনগর শাখার সভানেত্রী অনন্যা ভট্টাচার্য জানান সেনিটাইজারের মেশিন থেকে শুরু করে ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ সব বিষয়ে ছাত্র ছাত্রীদের যে কোন প্রশ্ন করলে সাবলীল ভাবে সবার প্রথমে উত্তর দিত এই মারিনা।


ফলে এই ছাত্রীটির সম্পর্কে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রিপন দাসকে জিজ্ঞেস করলে উনি জানান। মারিনা খুবই মেধাবী ছাত্রী। ক্লাস ওয়ান থেকে প্রতিটি ক্লাসেই প্রথম স্থান অধিকার করে এ বছর চতুর্থ শ্রেণীতে উঠেছে। কিন্তু যতই বড় ক্লাসে উঠছে ততই পারিবারিক দৈনতার কারণে পড়াশোনায় কিছু কিছু ঘাটতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কারণ তার বাবা পেশায় অতি সাধারণ একজন দিনমজুর। ফলে উনার পক্ষে পড়াশোনার খরচ বহন করাটা অনেকটাই কষ্টকর হয়ে পরেছে দিনকে দিন। 

প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে এই কথা শুনে রোটারেক্ট ক্লাব ধর্মনগর শাখার সদস্যরা জানান সিদ্ধান্ত নেন বৈঠাংবাড়ি ইংলিশ মিডিয়াম এসবি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী মারিনা ডারলং এর যাবতীয় পড়াশোনার দায়ভার এখন তারাই বহন করবে। সেই মোতাবেক মঙ্গলবার রোটারেক্ট ক্লাবের ধর্মনগর শাখার সদস্য-সদস্যারা মারিনার বাড়ি গিয়ে তার হাতে তার ক্লাসের বই খাতা তুলে দেন। তারা জানান তাদের সদস্য-সদস্যাদের আর্থিক সাহায্যেই মারিনার পঠন-পাঠনের খরচ বহন করা হবে। রোটারেক্ট ক্লাবের এই সাহায্য পেয়ে বিদ্যালয় কতৃপক্ষ ও এলাকা বাসি তাদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তাদের এই উদ্যোগ অত্যন্ত প্রশংসনীয়।


 

Attachments area

কোন মন্তব্য নেই