HeadLogo

ধর্মনগর থানা করোনা সংক্রমণে প্রায় অফিসার শূন্য । শ্লীলতাহানির দায়ে অভিযুক্ত শিক্ষক করোনা পজিটিভ - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
০৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
শুক্রবার 

ধর্মনগর প্রতিনিধিঃ উত্তর জেলার আরক্ষা দপ্তরে প্রতিনিয়ত বাড়ছে করোনা সংক্রামনের সংখ্যা। এর ফলে উত্তরের আইন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বেশ কঠিন চ্যালেঞ্জের মধ্যে পরতে হয়েছে উত্তর জেলার পুলিশ প্রশাসনকে। তবে গোটা জেলার মধ্যে সবচাইতে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে ধর্মনগর থানায়। প্রথম অবস্থায় একি দিনে ধর্মনগর মহিলা  থানার  ৫ মহিলা কনেস্টবলের করোনা সংক্রামনের পর ধর্মনগর থানায় দায়িত্বপ্রাপ্ত একাধিক টিএসআর ও পুলিশ কর্মীরা করোনায় আক্রান্ত হয়। এর পর বর্তমানে ধর্মনগর থানায় একে একে  ওসি সহ মোট ৭ জন ইন্সপেক্টরের মধ্যে ৬ জন করোনা আক্রান্ত। 


এদের প্রত্যেকেরই শারীরিক অসুস্থতা রয়েছে। অসুস্থতার কারনে প্রত্যেকেই হোম আইসোলেশনে থেকে নিয়মিত চিকিৎসা নিচ্ছেন। ফলে ধর্মনগর থানায় বর্তমানে ইন্সপেক্টর  রতন রবিদাসের দায়িত্বে রয়েছে। তাকে সাহায্য করতে জেলার অন্যান্য আউট পোস্ট থেকে এএসআই দের ধর্মনগর থানায়  আনা হয়েছে।  জেলার পুলিশ সুপার অফিস থেকেও কয়েক জন ইন্সপেক্টরকে সাময়িক দায়িত্বে আনা হয়েছে ধর্মনগর থানায়। গতকালও ধর্মনগর থানায় সেনিটাইজ করা হয়। কিন্তু ধর্মনগর থানার এহাল দেখে জেলার অন্যান্য থানার কর্মীদের কপালেও কিছুটা চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। জানা গেছে জেলার তিন মহকুমার মধ্যে দুই মহকুমার পুলিশ আধিকারিক করোনা আক্রান্ত। 


বাকি এক মহকুমা পুলিশ আধিকারিকের শারীরিক অবস্থা অনেকটাই উদ্বেগ জনক। ফলে বর্তমান পরিস্থিতিতে জেলায় কোন বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে আইন শৃঙ্খলার দিকে তা সামাল দিতে হিমশিম খেতে হবে আরক্ষা প্রশাসনকে। শুধু তাই না জেলার বিভিন্ন প্রান্তের আরক্ষা প্রশাসনকের কনেস্টবল থেকে শুরু করে এসআই ও এসডিপিওরা করোনা আক্রান্ত হওয়ায় জেলার বহু গুরুত্বপূর্ণ মামলার তদন্তে ব্যাঘাত ঘটছে। যেমন ধর্মনগর হাফলং রাবার বাগানের খুনের প্রায় ১০ দিন পেরিয়ে গেছে পাশাপাশি গঙ্গানগরে অজয় নাথের অস্বাভাবিক মৃত্যুর বেশ কিছু দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো কোন আসামীএই গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। 


এমন অনেক মামলাই রয়েছে যে গুলোর করোনার কারনে পুলিশের নাগালের বাইরে রয়েছে। সবচাইতে উদ্বেগ জনক বিষয় বৃহস্পতিবার ধর্মনগর চন্দ্রপুর এলাকার বাসিন্দা এক সরকারি শিক্ষকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির মামলা থাকায় পুলিশ অভিযুক্ত শিক্ষকে গ্রেফতার করে থানায় আনে। অভিযুক্তকে দীর্ঘ সময় ধর্মনগর থানায় বসিয়ে রেখে বৃহস্পতিবার রাতেই নিয়ম অনুযায়ী ধর্মনগর থানায় অভিযুক্তের মেডিকেল চেক আপ করাতে গেলে এন্টিজেন টেস্ট করা হয়। এতে শ্লীলতাহানির দায়ে অভিযুক্ত সেই শিক্ষকের করোনা পজিটিভ ধরা পরে । ফলে অনেকেই ধারণা করছেন ধর্মনগর থানায় দীর্ঘ সময় থাকায় এখান থেকেই হয়তো শিক্ষকের করোনা সংক্রামন ঘটে। এই ঘটনায় ধর্মনগর থানায় বর্তমানে কর্তব্যরতদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।




কোন মন্তব্য নেই