HeadLogo

দ্রুতগতিতে গাড়ি চালানোর ফলে দুর্ঘটনার শিকার চালকসহ সাতজন যাত্রী - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
৯ জুলাই ২০২০
বৃহস্পতিবার  

পানিসাগর প্রতিনিধিঃ আজ বেলা আনুমানিক ৩ ঘটিকায় উত্তর ত্রিপুরা জেলা পানিসাগর মহকুমার অন্তর্গত জলাবাসা দামছড়া সড়ক বরাবর কুঞ্জনগর  এলাকায় TR 05 B-1938 নম্বরের একটি মালবাহী মেজিক গাড়ি রাস্তার মধ্যেই উল্টে যায়। তবে গাড়িটি যদিও মালবাহী ছিল কিন্তু গাড়িতে যাত্রী ছিলেন চালকসহ সাতজন তারমধ্যে নার্সারিতে পাঠরত ৫ বছরের এক শিশুও ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা যায় যে গাড়িটি দ্রুতগতিতে দামছড়া থেকে জলাবাসা বাজার দিকে আসার পথে  আচমকাই পুরোপুরি রাস্তায় উল্টে যায়  এবং গাড়িতে থাকা শিশুটি গাড়ির নিচে চাপা পড়ে যায়। সাথে সাথে চিৎকার-চেঁচামেচি শুনে এলাকার লোকজন জড়ো হয়ে  গাড়ির নিচ থেকে শিশুটিকে বের করে আহত অবস্থায় জলাবাসা  প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তবে ওর মাথায় অল্প বিস্তর চুট লাগায়  সঠিক সময়ে চিকিৎসা শুরু হয়ে যাওয়ার কারণে শিশুটি বিপদমুক্ত বলে জানা যায়। 

উক্ত দুর্ঘটনার খবর পেয়ে  পানিসাগর ফায়ার সার্ভিস এর কর্মীবৃন্দ  ঘটনাস্থলে পৌঁছে মালবাহী গাড়ির বাকি অন্যান্য যাত্রীদের কে চিকিৎসার জন্য জলাবাসা প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে পৌঁছে দেন। তবে সংবাদকর্মীরা খবর নিয়ে জানতে পারেন গাড়িতে যারা যাত্রী ছিলেন উনারা হলেন পূর্ব জলাবাসা গ্রাম পঞ্চায়েতের কুঞ্জনগর ৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মায়া রানী নাথ , উনার ছেলে অমরনাথ ও  পাঁচ বছরের নাতি আয়ুস নাথ এবং পানিসাগর নগর পঞ্চায়েত ৪ নং ওয়ার্ড নিবাসী সাগর বনিক আরো অন্যান্য যাত্রী গন। কিন্তু  ঘটনাস্থলে ড্রাইভার কে পাওয়া না গেলেও দুর্ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করতে পানিসাগর থানার কর্মীবৃন্দ প্রথমে জলাবাসা প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র এসে দুর্ঘটনায় আহতদের সাথে কথা বলেন এবং তার পর মুহূর্তে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

তাছাড়া মালবাহী গাড়ির টেইলারে বসে  আসা যাত্রী  সাগর বণিক জানান যে গাড়িটি যখন জলাবাসা অভিমুখে আসছিল তখন বিপরীত দিক থেকে একটি স্কুটিতে দুজন আরোহী দাম চড়া অভিমুখে যাচ্ছিল। ফলে গাড়ি এবং স্কুটি ক্রস করার সময় মাল বাহি গাড়িটি আচমকাই রাস্তা মধ্যে দুর্ঘটনার শিকার হয়। কিন্তু প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিমত মালবাহী গাড়িটির গতি অত্যধিক থাকার কারণে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে এবং এলাকাবাসী প্রশ্ন একটি মালবাহী গাড়িতে কিভাবে চালক সহ এত জন যাত্রী নিয়ে যাচ্ছিল।

  

কোন মন্তব্য নেই