শুকরের মড়কের ফলে জনজাতি অংশের মানুষ ক্ষতির সম্মুখীন- Sabuj Tripura News

সবুজ
 ত্রিপুরা
২৭ এপ্রিল
মঙ্গলবার
তেলিয়ামুড়া প্রতিনিধি:- ত্রিপুরার স্ব-শাসিত জেলা পরিষদের বিভিন্ন এডিসি ভিলেজ গুলিতে বসবাসকারী উপজাতি অংশের মানুষজনদের আয় উপার্জনের একমাত্র মাধ্যম হলো গবাদি পশু রকমারির পশু পালন । এই পশু পালনের মধ্য দিয়েই উপজাতি অংশের মানুষজন স্বাবলম্বীও হয়ে ওঠে । 
কিন্তু গ্রীস্মের প্রখর রুদ্র তপ্ত দিনগুলিতে বিভিন্ন এডিসি ভিলেজে গবাদি পশু সহ শুকরের মড়ক লেগেছে । ঘটনা মুঙ্গিয়াকামী ব্লকের আঠারো মুড়া এডিসি ভিলেজ, নুনাছড়া এডিসি ভিলেজ, কাঁকড়া ছড়া এডিসি ভিলেজ, নমনজয়, প্রজা বাহাদুর মলসম পাড়া সহ বিভিন্ন এলাকাগুলিতে গবাদি পশু সহ শুকরের মড়ক লেগেছে । এদিকে ত্রিপুরা স্ব-শাসিত জেলা পরিষদের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তর এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের ইএম কমল কলই মুঙ্গিয়া কামী ব্লকের অধীনে বিভিন্ন এডিসি ভিলেজ গুলি পরিদর্শনকালে তিনি জানতে পারেন গবাদি পশু সহ শুকর মড়ক লেগেছে । ওই সময় তিনি জানান, গবাদিপশু সহ শুকরের মড়কের ফলে জনজাতি অংশের মানুষ জনেরা অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন । 
এ ব্যাপারে তিনি স্বশাসিত জেলা পরিষদের বৈঠকে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন ।এদিকে শুকর মড়কের ব্যাপারে তেলিয়ামুড়া স্থিত পশু হাসপাতালের ভেটেনারি কম্পাউন্ডার সুনীল চন্দ্র দাস জানান, বর্তমানে সোয়াইন ফ্লু ফিভার চলছে । তাই শুকরের মড়ক লেগেছে । এই রোগের জন্য অবশ্য তিনি শুকর পালকদের ই তিনি দায়ি করেছেন । কারণ একটি শুকরের জন্মের ৪৫ দিন পর একটি ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রয়োজন । 
যে শুকর পালকরা তাদের শুকরের ভ্যাকসিন করাননি সেই সমস্ত শুকর গুলি বর্তমানে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে । অপরদিকে তেলিয়ামুড়া পিগ ফার্মের চিকিৎসক ডাক্তার আলমতি ভৌমিক জানান, শুকর মড়কের ব্যাপার নিয়ে আগরতলা স্থিত  শুকর অনুসন্ধান গবেষণাগার রয়েছে সেখানে এই রোগ সম্পর্কে গবেষণা চালাচ্ছে এই গবেষণাগারে নিয়োজিত বৈজ্ঞানিকরা । অন্যদিকে শুকর মড়কের প্রভাব পড়ল স্থানীয় বাজার গুলোতে । বাজার গুলোতে শুকরের মাংস ৩৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে বাজার গুলোতে শুকরের মাংস বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১০০ থেকে ১৫০ টাকা দামে ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য

Close Menu