HeadLogo

মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনের কারণে সম্মানহানি, বিচারের আশায় প্রেসক্লাবের শরণাপন্ন - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা 
১২ ডিসেম্বর ২০২০  
শনিবার

পানিসাগর প্রতিনিধিঃ বিগত ১৩ নভেম্বর ২০২০ ই শুক্রবার দাম চড়া ফরেস্ট রেঞ্জ এর আওতাধীন বংশাল এলাকায় নিজের নামাঙ্কিত জমিতে জাতি গাছ কেটে, সম্পূর্ণ সরকারি বৈধ কাগজপত্র ও ফরেস্ট বিভাগের অনুমতি নিয়ে টি আর ০১ -১৬৩৫ নম্বরের মালবাহী গাড়ি তে গাছ লোডিং এর কাজ করছিলেন। গাড়ির ড্রাইভার সহ জমির মালিক বংশোল এলাকার বাসিন্দা মৃত ভিসা মনি রিয়াং এর স্ত্রী শ্রীমতি মাসলতি রিয়াং।  শ্রমিকদের নিয়ে গাছ লোডিং এর কাজ চলাকালীন সময়ে দুইজন ব্যক্তি নিজেকে সংবাদকর্মী পরিচয় দিয়ে গাছ লোডিং এর কাজে বাধা প্রদান করেন। 


তাদের বক্তব্য ছিল অবৈধভাবে গাছগুলি বিক্রি করছেন এবং লরিটি অবৈধভাবে গাছ পরিবহন করছে। দুজন ভুয়া সাংবাদিক কর্মরত শ্রমিকদের প্রায় দু-তিন ঘণ্টা কাজে বাধা প্রদান করে এবং লরির মালিক থেকে অবৈধ ভাবে অর্থ দাবি করে বলে লরি মালিক এর বক্তব্য। তখন লরি মালিক সম্পূর্ণ বৈধ কাগজপত্র তাদের সামনে তুলে ধরলে তারা সেগুলি দেখতে নারাজ। প্রায় তিন ঘন্টা শ্রমিকদের কাজে বাধা প্রদান করে অবশেষে ২ জন সাংবাদিক পরিচয় দাড়ি ব্যক্তি ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। 


তার চার পাঁচ দিন পর আগরতলার এক বিশেষ সংবাদ চ্যানেল এর মাধ্যমে বিশ্বজিৎ দে নামাঙ্কিত ব্যক্তি দ্বারা জমির মালিক, গাড়ি মালিক, টিম্বার ব্যবসায়ীর নাম করে ও দামচড়া ফরেস্ট রেঞ্জার সম্মান কুলুষিত করার জন্য পরিকল্পিতভাবে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করা হয়। তাতে জমি ও গাছের মালিক সহ লরি মালিক, টিম্বার ব্যবসায়ী এবং পানিসাগর মহকুমার দামচড়া ফরেস্ট রেঞ্জার সম্মানহানি হয়। সম্পূর্ণ বৈধ কাগজপত্র এবং সরকারী অনুমোদন থাকার পরও জমির মালিক ও লড়ি মালিকদের কাছ থেকে উক্ত  সংবাদকর্মী  দুই ব্যক্তি তোলাবাজি করার ধান্দায় লিপ্ত হয়েছিলেন।তাতে বিফল হয়ে সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করেন।  


খবর নিয়ে জানা যায় এর আগেও এই দুই ব্যক্তি সংবাদ পরিবেশনের ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন ভাবে তুলা বাজিতে অভ্যস্ত। ঠিক সেইরূপ বিগত দিনে উপজাতি মহিলার জমি থেকে গাছ বিক্রি করার বৈধ কাগজপত্র থাকার পরও মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করায়, অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন লরি মালিক এবং টিম্পার ব্যবসায়ীগণ। উক্ত মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনের সুবিচার চেয়ে, জমির মালিক ও লরি মালিক সহ টিম্বার ব্যবসায়ী গন  নর্থ ডিস্ট্রিক্ট প্রেসক্লাবের কাছে লিখিত আবেদন রাখেন। তৎপর ধর্মনগর এস ডি এফ অ এর কাছে সুবিচার প্রার্থনা করেন। এখন দেখার বিষয় ধর্মনগর প্রেসক্লাব ও উপজাতি মহিলার সম্মান ফিরিয়ে দিতে কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

কোন মন্তব্য নেই