Ad Code

Responsive Advertisement

জলের সমস্যায় নাজেহাল মুঙ্গিয়াকামী ব্লকের অধীনে বসবাসকারী গিরিবাসীরা - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
বৃহস্পতিবার  

তেলিয়ামুরা প্রতিনিধিঃ বছর ঘুরে ফের একবার আসে  নির্বাচন শেষ হয় নির্বাচন প্রতিটি ক্ষেত্রেই শুধু প্রতিশ্রুতির বন্যা। বিগত বহুবছর ধরে উন্নয়নের কোন ধরনের ছোঁয়া লাগেনি এই গ্রামে। প্রতিটি দলের শুধু নেতা-নেত্রীরা নির্বাচনের প্রার্থী শরীরের ঘাম ঝরিয়ে ভোটের আকুল প্রার্থনা করেন। আর ভোট গেলেই বা কে কার দ্বারে ঘুরে। কেমন আছেন সেই কথাটা বলার জন্য কাউকেই দেখা যায় না। আমরা বলেছিলাম তেলিয়ামুড়া মহুকুমার মুঙ্গিয়াকামী ব্লক এর অধীন কাঁকড়া ছড়া এডিসি ভিলেজের হাজরা পাড়ার বিভিন্ন উপজাতি জনবসতি এলাকার কথা। 


লুনা ছড়া যাওয়ার মূল রাস্তা ধরে বাঁ দিকে মোর নিলেই পায়ে হাঁটার অযোগ্য জঙ্গলাকীর্ণ একটি রাস্তা। চড়াই উতরাই জঙ্গল সাপের ভয় মারিয়ে কাঁচা  মেঠো পথে এক পায়ের রাস্তা ধরে যেতে হয় ঐ গ্রামে। এলাকায় বসবাসকারীদের  অভিযোগ বিশুদ্ধ পানীয় জলের কোন বন্দোবস্ত নেই এই গ্রামে ছড়া কিংবা পাথর চুষা জলই তাদের একমাত্র পানীয় জলের উৎস কিংবা ছড়ায় অস্থায়ী গর্ত করে জল জমিয়ে সেই জল ব্যবহার করা। 


সেটা যেন  যুগ যুগ ধরে তাদের পিতৃপুরুষদের দেখানো  রাস্তা ধরেই জলের উৎস খোঁজা। জল সংগ্রহ করতে এক প্রহর লেগে যায় তাদের। শুধু তাই নয় পানীয় জলের উৎস খুঁজতে ছড়ার এক প্রান্ত থেকে অন্য 

প্রান্তে গর্ত করে রাখতে হয় পরের দিন জল সংগ্রহ করার জন্য। সমস্ত দিনের জুম চাষ করে সন্ধ্যাবেলায় গৃহে প্রবেশ করেই জল সংগ্রহ করতে জঙ্গল পথে যেতে হয় ঐ জলের উৎস স্থলে। প্রায় পাঁচশত ফুট নিচে জল সংগ্রহ করে ফের একবার উচু টিলা বেয়ে পাড়ি দিতে হয় ঘরে। কতইনা হৃদয় বিদারক ঘটনা যদিও আমরা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে দেখতে পাই সবার জন্য জলের ব্যবস্থা প্রায় হয়ে গেছে। 


অটল জল ধারায় জল ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে। তবে এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে তাদের একটাই দাবি কোনভাবে যদি বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা করে দেয় রাজ্য সরকার তাহলেই তারা খুশি হবেন।  উনারা আরো জানান এই  অপরিশোধিত পানীয় জল খেয়ে ঘরের ছেলে মেয়েরা ও পরিবারের অন্য সদস্যরা প্রায়শই অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয় জল বাহিত বিভিন্ন রোগের কারণে। এমনকি একসময় এই জল বাহিত রোগের কারণে প্রত্যন্ত অঞ্চল গুলোতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে দেখা গেছে ছোট-বড় অনেক প্রত্যন্ত অঞ্চলের অধিবাসীদের।




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য

Close Menu