HeadLogo

নেশা বিরোধী অভিযান চালিয়ে হেরোইন ভেবে উদ্ধার বিস্কুট , চিপস ও মরিচের গুঁড়ো - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
১৪ আগষ্ট ২০২০
শুক্রবার

চুরাইবাড়ি প্রতিনিধিঃ উত্তর জেলার পুলিশ সুপার ভানুপদ চক্রবর্তীর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চুরাইবাড়ি থানার পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ গতকাল সন্ধ্যা থেকে প্রেমতলা বাজারে নেশাবিরোধী অভিযানে জোর তল্লাশি শুরু করে। ফলে আজ দুপুর নাগাদ প্রেমতলা বাজার সংলগ্ন কদমতলা চুড়াইবাড়ি সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একটি মালবাহী ৩ চাকার গাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে চালকের আসনের নিচ থেকে ১ প্যাকেট এবং ১০ কৌটা নেশাজাতীয় হেরোইন উদ্ধার করে চুরাইবাড়ি থানার পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ। 



সাথে আটক করা হয় একটি মালবাহী গাড়ি ও গাড়ি চালককে। উপস্থিত আমজনতা থেকে শুরু করে পুলিশের প্রাথমিক সন্দেহ হয় উদ্ধারকৃত প্যাকেটে ও কৌটায় হেরোইন গুলি আদৌ হেরোইন নাকি অন্য কিছু। ফলে সন্দেহভাজন মালবাহী গাড়ি,চালক ও হেরোইন গুলি চুরাইবাড়ি থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।


সেখানে উপস্থিত উত্তর জেলার পুলিশ সুপার ভানুপদ চক্রবর্তী, মহকুমা পুলিশ আধিকারিক রাজীব সূত্রধর, চুরাইবারি থানার ওসি জয়ন্ত দাস ও গোয়েন্দা পুলিশের কর্মীরা দাঁড়িয়ে সন্দেহভাজন হেরোইন গুলি নার্কটিক্ট ড্রাগস ডিটেকশন কিটে পরীক্ষা করে দেখতে পান উদ্ধারকৃত হিরোইনের মত দেখতে গুঁড়া গুলি আদতে হেরোইন নয়। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান সেগুলি বিস্কুট ও চিপসকে গুঁড়ো করে তাতে মরিচের গুঁড়া মেশানো হয়েছে। 


যেহেতু সেগুলি হেরোইন নয় সুতরাং চুড়াইবাড়ি থানার পুলিশ সন্দেহভাজন যুবক ও গাড়িটিকে ছেড়ে দেন। এদিকে নেশা কারবারি সন্দেহে সন্দেহভাজন যুবকের পরিবার সূত্রে জানা গেছে,দীর্ঘদিন যাবৎ উনাদের সাথে পাশের গ্রামের জৈনক এক ব্যক্তির পারিবারিক বিষয় নিয়ে অনেক ঝামেলা লেগে রয়েছে। তবে পুলিশি প্রাথমিক তদন্তে এটা নিশ্চিত যে, কেউ এই যুবককে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যা ভাবে নেশাকারবারী বানিয়ে ফাঁসাতে চেয়েছিল। তবে চুরাইবাড়ি থানার পুলিশ গোটা ঘটনা নিয়ে তদন্ত শুরু করে দিয়েছে।


কোন মন্তব্য নেই