ত্রিপুরা রাজ্যের বাঁশ বেত তৈরী সামগ্রির কদর দেশের সাথে সাথে সাড়া বিশ্ব জুরে


সবুজ ত্রিপুরা, বিশেষ প্রতিবেদন, ৩মে : বাঁশ বেত দিয়ে তৈরী করা জিনিসের কদর রয়েছে সাড়া দেশে। আর ত্রিপুরা রাজ্যের বাঁশ বেত তৈরী সামগ্রির কদর দেশের সাথে সাথে সাড়া বিশ্ব জুরে।

ত্রিপুরাতে ঐ সব হাতের তৈরী শিল্পের মধ্যদিয়ে রাজ্যের কিছু সংখ্যক উপজাতি অংশের মানুষ উপার্জনের ব্যবস্থা করে থাকেন।কিন্তু বর্তমানে কাঁচা মালের অর্থাৎ ঐ শিল্পের চাহিদা অনুসারে বাঁশ চড়াদাম দিয়েও পাওয়া প্রায় কষ্টসাধ্য ব্যাপার  হয়ে দাঁড়িয়েছেরাজ্যের তেলিয়ামুড়া মহকুমাধীন খাসিয়ামংগল এলাকায় এমনই  এক শিল্পী জামিনি কলই এর সাথে দেখা করে উনাদের সমস্যার কথা জানা যায়। জামিনি কলই এর শৈশব কাটে উদয়পুরে। উদয়পুরের রমেশ স্কুলে ছাত্র। পরবর্তী সময়ে খাসিয়ামংগলে আসেন। তিনি ১৯৮০ সাল থেকে এই কাজে যুক্ত হন। বাঁশ থেকে বেত তুলে তৈরী করা সামগ্রী ত্রিপুরার বিভিন্ন বাজারের সাথে সাথে বহিরাজ্যের বাজারেও যথেষ্ট  কদর পায়। জামিনি কলই ৮২ বছর বয়সেও বাঁশ কেটে বেত তোলে  বিভিন্ন সামগ্রী  তৈরী করে চলছেন।
উনি একান্ত সাক্ষাতে  জানান খাসিয়ামংগল এলাকায় তিনি বসবাস করতে শুরু করেন ১৯৮০ সাল থেকে। ঐ সময় থেকেই নিজের হাতে বাঁশ তৈরী পাখা, ঝুরি, উপজাতিদের খারা, মুড়া, ডালা ইত্যাদি সামগ্রী তৈরি করে আসছেন। তিনি আরও জানান রফাই নামক বাঁশ এখন আর চড়া মুল্য দিয়েও পাওয়া যায় না। আর যা পাওয়া যায় তাতে খরচ পরে প্রায় বাঁশ প্রতি ৫০ টাকা । উনার দুই ছেলে। একজন সরকারি  শিক্ষক পদে কর্মরত।  তবে এই ৮২ বছর বয়সে জামিনি কলই যেভাবে বিভিন্ন সামগ্রী তৈরী করে চলছেন, তা সত্যিই অবাক করার মত।







প্রতিবেদকঃ সঞ্জিত দাস, তেলিয়ামুড়া

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য

Close Menu