HeadLogo

কর্নাটক থেকে ত্রিপুরার উদ্দেশ্যে রবিবার রওনা হবে ট্রেন। এখন পর্যন্ত ২৬ হাজারের রাজ্যে ফেরার আবেদন

সবুজ ত্রিপুরা, নিজস্ব প্রতিনিধি, ৯মে : এখন পর্যন্ত রাজ্যে ফেরার আবেদন করেছেন বহিরাজ্যে থাকা ত্রিপুরার প্রায় ২৬ হাজারেরও বেশি লোক। শনিবার সন্ধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলন করে এ কথা জানিয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রী রতনলাল নাথ। ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটকেপড়াদের রাজ্যে ফেরাতে রাজ্য সরকার যে ওয়েব পোর্টাল চালুকরেছে তাতে প্রায় আজ সন্ধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলন করা পর্যন্ত প্রায় ২৬০০২ জন আবেদন করেছেন। যদিও খুব দ্রুত এর সংখ্যা বেড়েই চলেছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী রতনলাল নাথ। 
এই আবেদনের নিরিখেই যে সব রাজ্যে আটকে পড়াদের সংখ্যা বেশি সেসব রাজ্যকেই অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে দেখে যত দ্রুত আনা যায় সে পথেই হাঁটছে ত্রিপুরা। যেমন এখন পর্যন্ত কর্নাটকে আটকে পরা লোকের সংখ্যা সবচাইতে বেশি। প্রায়  ৮৭৫৮ জন। এদের রাজ্যে ফেরাতে আগামী কাল অর্থাৎ ১০ মে কর্নাটক থেকে প্রথম একটি ট্রেন আবেদনের  ভিত্তিতে ১২০০ যাত্রী নিয়ে রওনা হবে। ট্রেনের ভাড়া বাবদ রাজ্য সরকার রেলওয়ে দপ্তরকে ১২লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা দিয়েছে। বাকিদেরও খুব শীঘ্রই ট্রেন যোগে আনা হবে।


তাছাড়া তামিলনাড়ু থেকে রাজ্যে ফেরার আবেদন পড়েছে ৫৯৫৭টি সেখান থেকেও আগামী কিছু দিনের মধ্যে ট্রেন যোগে সবাইকে রাজ্যে ফেরানো হবে। পশ্চিমবঙ্গ থেকে ৫১৪৫ জন আবেদন করলেও ত্রিপুরা ও পশ্চিমবঙ্গ সরকার  আলোচনার মাধ্যমে এখনো ট্রেনের কোন সিদ্ধান্তে এসে পৌঁছাতে পারেনি।মহারাষ্ট্র  থেকে রাজ্যে ফেরার আবেদন এসেছে ৯৫০ জনের মতো। এদিকে মহারাষ্ট্র সরকার জানিয়েছেন ১০০০ মানুষ নাহলে ট্রেনের ব্যাবস্থা করা যাবে না। পাশাপাশি আসামে আটকে পড়া প্রায় ৩৫০০ জন ও আবেদন করেছেন। 

সাংবাদিকদের তিনি আরো জানান বহিরাজ্যে আটকে পড়া রাজ্যের জনগনদের আর্থিক সাহায্যের জন্য এখন পর্যন্ত প্রায় ৫৯২৩টি পিটিশন জমা পড়েছিল। এদের মধ্যে প্রায় ৫০৬০টি পিটিশনের জন্য মোট ১,৮৯,৭৩,৪৯০ টাকা রাজ্য সরকার তাদের একাউন্টে পাঠিয়েছে। বাকিদের টাকাও খুব শীঘ্রই একাউন্টে দিয়ে দেওয়া হবে। পাশাপাশি তিনি আরো জানান। গোটা দেশের বিভিন্ন প্রান্তেআটকে পড়াদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতেই আনা হবে রাজ্যে। যেমন প্রথমে রোগী তারপর ভ্রমণ যাত্রী এরপর তীর্থ যাত্রীদের। তবে ছাত্রছাত্রীদেরও গুরুত্বসহকারেই রাজ্যে ফেরানো হবে বলে জানিয়েছেন তিন।


কোন মন্তব্য নেই