HeadLogo

দিব্যাঙ্গজন প্রলয়ের মেধার স্ফুরণ : মুখ্যমন্ত্রী শ্রী বিপ্লব কুমার দেবের অভিনন্দন ও সাহায্য প্রদান


সবুজ ত্রিপুরা, সংবাদমাধ্যম, ১১ জুন : গোমতি জেলার অধিবাসী দিব্যাঙ্গ ছাত্র প্রলয় দে প্রমাণ করেছেন যে অসম্ভব কিছুই নয় লেখার জন্য সে তার পা ব্যবহার করেন এবং এ বছর ত্রিপুরা দশ শ্রেণীর বোর্ডের পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে পাশ করেছে পেছনে হাত বাঁকানো অবস্থায় প্রলয় জন্মগ্রহণ করে এবং যখন সে ১৫ দিন বয়সী ছিল, তখন তার হাত প্লাস্টার করা হয়, যা সাড়ে তিন বছর ধরে রাখার পর বর্তমান অবস্থানে এসেছে।­
দিব্যাঙ্গ ছাত্র প্রলয় দে
প্রয়ের বাবা সুজন কুমার দে দিনমজুর এবং তার মা পুতুল গুহ দে অঙ্গনওয়ারী (আইসিডিএস) কেন্দ্রের সাহায্যকারী। মূলতঃ মায়ের ছোট বেতনের উপর নির্ভর করেই চলে এই দরিদ্র পরিবারটি। এত কঠিন পরিস্থিতিতেও গোমতী জেলার মাতাবাড়ি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রলয় তার পা দিয়ে লিখে দশম শ্রেণীর বোর্ডের পরীক্ষায় উভয় ভাষা পত্রে লেটার মার্কসহ (80 শতাংশের উপরে) প্রথম বিভাগে ৩৪৬ নম্বর অক্ষর পেয়েছে তার অক্ষমতা তার ক্ষমতাকে সংজ্ঞায়িত করে না। প্রলয় তার নিজের পরীক্ষা উত্তরপত্র নিজেই লেখে এবং কোন অন্য লেখক ব্যবহার করে না প্রকৃতপক্ষে সে তার পা দিয়ে অন্যদের মতো ভাল লেখার জন্য প্রশিক্ষণ নিয়েছে। তার পরিবারের আর্থিক অবস্থা নিয়ে চিন্তিত হলেও প্রলয় পড়াশোনা করতে চা এবং ভবিষ্যতে একজন ইংরাজি অধ্যাপক হতে চায়।
রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী বিপ্লব কুমার দেব দিব্যাঙ্গ ছাত্র প্রলয় দে ও তার পরিবারের সাথে কথা বলছেন
যাইহোক, তার মা পুতুল চিন্তিত যে তিনি কীভাবে তার ছেলে ও মেয়েটি, যে স্নাতক স্তরে পড়াশোনা করছে, তাদের শিক্ষামূলক খরচ পূরণ করবেন। তিনি ছেলের ফলাফলে খুব খুশি। ইতিমধ্যেই উনার চিন্তাভাবনা কিছুটা হ্রাস পেয়েছে, কারণ সোমবার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব প্রলয়ের সাফল্যের কথা শুনে তার পিতামাতার সাথে দেখা করার জন্য তাঁর সরকারী বাসভবনে তাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন এবং প্রলয়কে অভিনন্দন জানান
মুখ্যমন্ত্রী শ্রী দেব তার তার কাছ থেকে তাদের দুর্বল অবস্থার কথা শোনেন এবং প্রলয় অনুরোধ জানায় যে, যদি তার মা নিকটস্থ আইসিডিএস কেন্দ্রে স্থানান্তরিত হতে পারে যাতে সে স্কুলে যাওয়ার আগে তাকে প্রস্তুতি নিতে সাহায্য করতে পারে যদিও শ্রী দেব তার মায়ের স্থানান্তর সম্পর্কে প্রলয়কে আশ্বাস দিতে পারেনি তবে তিনি ঘোষণা করেন যে ত্রিপুরা সরকার প্রলয়ের উচ্চ শিক্ষার সব খরচ বহন করবে তিনি বলেন যে প্রলয় তার শারীরিক অসুবিধা সত্ত্বেও অন্যান্য বাচ্চাদের থেকে ভিন্ন নয় বরং যারা সবসময় অভিযোগ করে এবং বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে অজুহাত দেয় তাদের জন্য সে অনুপ্রেরণার মতো।

কোন মন্তব্য নেই