মারধরের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা বলেন বিশালগড় মহকুমার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারি- Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
১০ এপ্রিল
শনিবার
বিশালগড় প্রতিনিধি:- শুক্রবার দিন অফিস চলাকালীন সময়ে বিশালগড় মহকুমা হাসপাতালের গ্রুপ ডি কর্মচারী কৃষ্ণ ঋষি দাস অভিযোগ করেন যে তাকে নাকি সিপাহীজলা জেলার মুখ্য জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক ডক্টর রঞ্জন বিশ্বাস মারধর করেছেন এবং গালে চড় মেরেছেন।
এই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং বানানো এবং সাজানো নাটক বলে সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানিয়েছেন জেলার মুখ্য জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক। বিশালগড় মহাকুমা হাসপাতালে কর্মরত অন্য দুই গ্রুপ ডি কর্মচারী বিজয়া শীল এবং মিটন দাস জানিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এর বিরুদ্ধে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী কৃষ্ণ ঋষি দাস যে অভিযোগ এনেছেন তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।
কারণ কৃষ্ণ ঋষি দাস কে বলা হয়েছিল বাথরুম গুলো পরিষ্কার করার জন্য। কিন্তু কৃষ্ণ ঋষি দাস বলেছেন যে পারবেন না তিনি। উল্টো তিনি জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক কে ধমক দেন এবং আদেশ মানবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।
তখন জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক কৃষ্ণকে জিজ্ঞেস করার জন্য একটি রুমে গেলে তখন কৃষ্ণ জুর করে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এর হাতে ধরে চিৎকার করতে থাকে এবং কাঁদতে থাকে যে আপনি আমাকে মারলেন কেন। অথচ হাসপাতালে অন্যান্য স্টাফরা ও জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এর সঙ্গে ছিল।
স্টাফেরা জানিয়েছেন এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি, রঞ্জন বাবু হাত তুলেনি। সম্পূর্ণ চক্রান্ত করে নাটক করে বদনাম করার চেষ্টা করে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী কৃষ্ণ ঋষি দাস। আরো অভিযোগ কৃষ্ণ ঋষি দাস এর বিরুদ্ধে সে হাসপাতালে সমস্ত স্টাফদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে এবং খারাপ ব্যবহার করে। তার খারাপ ব্যবহারের অতিষ্ঠ সমস্ত স্টাফেরা। হাসপাতালে এসে কাজ না করে শুধু আড্ডা দেয় এবং অন্যান্য স্টাফদের আদেশ দেয় নির্দেশ দেয়। যার ফলে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক এই বিষয়ে জিজ্ঞেস করতে গেলে কৃষ্ণ ঋষি দাস চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু করে দেয় এবং কান্নাকাটি শুরু করে দেয় এবং উল্টো বদনাম করে ডক্টর রঞ্জন বিশ্বাস কে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য

Close Menu