HeadLogo

অসংখ্য সমর্থকদের উপস্থিতিতে সম্বর্ধনা জ্ঞাপন করা হলো প্রদেশ সভাপতি ডঃ মানিক সাহাকে - Sabuj Tripura News

সবুজ ত্রিপুরা
১৮ নভেম্বর ২০২০  
বুধবার   

ধর্মনগর প্রতিনিধিঃ দলের সাংগঠনিক ভিত আরো মজবুত করতে মঙ্গলবার ধর্মনগর এসেছিলেন বিজেপি ত্রিপুরা প্রদেশ সভাপতি ডঃ মানিক সাহা। মূলত দলের প্রদেশ সভাপতির দায়িত্ব পাওয়ার পরে এটাই ছিল ডঃ মানিক সাহার উত্তর জেলায় প্রথম সফর। মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় প্রদেশ সভাপতি প্রথম উত্তরের পানিসাগর আসেন। সেখান থেকেই ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার রাজ্য প্রভারী তথা বিজেপি রাজ্য সম্পাদক টিংকু রায়ের নেতৃত্বে যুব মোর্চার বিশাল বাইক বাহিনী প্রদেশ সভাপতিকে বাইক রেলীর মধ্য দিয়ে ধর্মনগর বিবেকানন্দ ভবনে নিয়ে আসেন। সেখানে উপস্থিত বিজেপির কার্যকর্তা প্রদেশ সভাপতিকে সাদরে অভিনন্দনের মধ্য দিয়ে স্বাগত জানান।ধর্মনগর বিবেকানন্দ সার্ধশতবার্ষিকী ভবনে প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে আয়োজিত প্রদেশ সভাপতির সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সূচনা হয়। 

এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উনার সাথে উপস্থিত ছিলেন ধর্মনগরের বিধায়ক তথা রাজ্য বিধানসভার উপাধ্যক্ষ বিশ্ব বন্ধু সেন। ছিলেন উত্তর জেলার বিজেপি সভানেত্রী মলিনা দেবনাথ প্রমূখ। উত্তর জেলার প্রতিটি মোর্চার তরফ থেকে একে একে রাজ্য সভাপতি কে সম্বর্ধনা জ্ঞাপন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত উত্তর জেলা সভাপতি মলিনা দেবনাথ স্বাগত ভাষণ এর মধ্য দিয়ে ডাঃ মানিক সাহা কে অভিনন্দন জানান। তিনি আশা ব্যক্ত করে বলেন উনার সহযোগিতা নিয়ে উত্তর জেলার প্রতিটি ঘরে ঘরে পদ্মফুল প্রস্ফুটিত করার সংকল্প নিয়ে উত্তরের সংগঠন কাজ করছে। রাজ্য বিধানসভার উপাধ্যক্ষ আলোচনা পরিষ্কার করে বলেন বিগত জোট জামানায় কংগ্রেস দলে থেকেই কংগ্রেসের একটা গোষ্ঠী যেভাবে কংগ্রেসকে ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র করেছিল। 


ঠিক এভাবেই একই কায়দায় বর্তমানেও বিপ্লব দেবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র চলছে। কিন্তু এ রাজ্যের মানুষ বিপ্লব কুমার দেব কে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায়। আগামী দিন বিপ্লব দেব এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে থাকবে এবং যারা মুখ্যমন্ত্রীকে সরাতে চাইছে তাদের ধিক্কার জানান তিনি। এদিকে উপস্থিত রাজ্য বিজেপির সম্পাদক টিংকু রায় খুব সংক্ষিপ্ত আলোচনার মধ্য দিয়ে রাজ্য বিজেপি সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের কথা তুলে ধরেন। পাশাপাশি তিনি জানান বিগত দিনে বামেরা যেভাবে নিজেদের গরিবের সরকারকে বলে পরিচয় দিতেন প্রকৃতপক্ষে তা কিছুই না। বরং বামেরা সেই গরীবদের ঠকিয়ে ২৫টি বছর ক্ষমতায় ছিলেন। বর্তমান সরকার গরিবদের অগ্রাধিকার দিয়ে উন্নয়নের পথে হাঁটছে। তাই আগামী ২০২৩ এর বিধানসভা নির্বাচনে উত্তর জেলার সবকটি বিধানসভা আসনে বিজেপি জয়যুক্ত হয়ে ডঃ মানিক সাহাকে উপহার স্বরূপ দিবে বলে আশা প্রকাশ করেন টিংকু রায়। সর্বশেষ আলোচনায় মঙ্গলবার রাজ্য বিজেপি সভাপতি ডঃ মানিক সাহা খুব কম আলোচনার মধ্যে বোঝানোর চেষ্টা করেন বিজেপি শৃঙ্খলা পরায়নের মধ্য দিয়ে দেশ হিতে কাজ করে চলে। বিজেপির মূল লক্ষ্য উন্নয়ন। কংগ্রেসকে তিনি তালা দেওয়ার পার্টি এবং ঊশৃংখল পার্টি বলে কটাক্ষ করেন। 


তিনি বলেন এ রাজ্যের মানুষ আগামী দিন কোনভাবেই কমিউনিস্টদের গ্রহণ করবেনা। পাশাপাশি কংগ্রেস দল যেভাবে বিশৃংখলার মধ্য দিয়ে এগোচ্ছে তা থেকে স্পষ্ট কংগ্রেস দল ক্ষমতায় আসতে পারবে না। তিনি আরো বলেন কিছু কিছু সাংবাদিক ব্যক্তিস্বার্থে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে ভুল খবর ছাপাতে ব্যস্ত। সময় মত তাদের জবাব দেওয়া হবে। বিবেকানন্দ সার্ধশতবার্ষিকী ভবনের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সীমিত সময় ছিল বলে কোন বক্তারাই দীর্ঘ আলোচনায় অংশ নেন নি। বিবেকানন্দ ভবনের পর জেলার প্রতিটি মন্ডল গিয়ে বিজেপি কার্যকর্তাদের নিয়ে সাংগঠনিক আলোচনায় অংশ নেন রাজ্য সভাপতি ডঃ মানিক সাহা। আগামী এডিসি নির্বাচনও পুরো পরিষদ ও নগর নির্বাচনে উত্তর জেলায় বিজেপির ফলাফল ভালো হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

কোন মন্তব্য নেই