HeadLogo

বিশ্বব্যাপী মহামারীর সময়ে "কৃষি ও কৃষকের সেবায় কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র"


সবুজ ত্রিপুরা, বিশেষ প্রতিবেদন, ১৬মে: বিশ্বব্যাপী করনাতঙ্কের হাত থেকে পরিত্রান পেতে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন প্রক্রিয়া। প্রথম, দ্বিতীয় দফা শেষে বর্তমানে তৃতীয় দফায় চলছে লকডাউন। উক্ত লকডাউনের অন্তরবর্তী সময়ে দেশের খাদ্যের একমাএ অবলম্বন কৃষিজ ফসল ও কৃষককে নিয়ে বসে নেই কেন্দ্রীয় থেকে রাজ্যের কৃষিদপ্তর। 
"কৃষি ও কৃষকের সেবায় কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র" এই শ্লোগান কে বাস্তবায়িত করার লক্ষ্যে সদা সর্বদাই নিয়োজিত পানিসাগর কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র। দেশজুরে তথা গোটা রাজ্য জোরে কোভিড ১৯ এর প্রকোপে লকডাউন প্রক্রিয়া চলাকালীন সময়ে এর কোন ব্যাতিক্রম হয়নি। তাই কৃষি ও কৃষকদের কথা মাথায় রেখে পানিসাগর কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র উওর জেলার সমস্ত কৃষকদের কোন না কোন সাহায্যে এগিয়ে এসেছে। গোটা উওর জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কৃষকদের মধ্যে ১.৭৭কুইন্টাল ভূট্টা বীজ, ২.১ কুইন্টাল ধান, উন্নত প্রজাতির ঢেঁড়স বীজ এবং তার সাথে প্রয়োজনীয় সার বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়।  কৃষি কাজে ব্যবহৃত ১০২ টি বিভিন্ন সরঞ্জাম সহ যন্ত্রাদি বিতরন করা হয়। এছাড়াও ৮০০টি গ্রীষ্মকালীন গাদা ফুলের চারা, ২০০০টি উন্নত প্রজাতির ঘাসের চারা প্রদান করা হয়। 

লকডাউন চলাকালীন সময়ে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র উওর এিপুরার উদ্দ্যোগে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ১৮ গোষ্ঠীতে  ৮২০ জন কৃষককে, এম কিষান পোর্টালের মাধ্যমে ৩৬০০ জন কৃষককে এবং অন্যান্য প্রচার মাধ্যমের দ্বারা ৬২৪৪ জন কৃষককে কৃষি সংক্রান্ত জরুরি পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও এখন অব্দি ৩৬০ জন কৃষককের মধ্যে বাংলায় ছাপানো সচেতনতামূলক বিজ্ঞপ্তি পত্র বিতরন করা হয়। আকাশবাণীর কৈলাশহর কেন্দ্র থেকে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র উওর এিপুরার কর্মীরা এিপুরা সহ রাজ্যের কৃষকদের জন্য বেতারবার্তা প্রচার করেছেন। রিলায়েন্স ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় কৃষকদের জন্য অডিও মেসেজ এবং অডিও কনফারেন্সিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়াও কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের পক্ষ থেকে প্রায় ২৬৫ জন কৃষককে করোনা সংক্রমণ থেকে পরিএান পেতে মাক্স বিতরন করা হয়েছে। 

এটা বলার অবকাশ নেই যে, কৃষি প্রধান ভারতবর্ষে বর্তমান মহামারীকে উপেক্ষা করেও নিজেদের জীবন বাজি রেখে কৃষকদের পাশে এগিয়ে আসে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের কর্মকর্তারা। উওর জেলার পানিসাগর স্থিত কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের সমস্ত আধিকারিকরাও ব্যাক্তিগত ভাবে বিভিন্ন সংস্থার সাথে সামিল হয়ে সমাজের পিছিয়ে পড়া অংশের জনগনের সেবায় ও কৃষকদের পরিষেবায় সদাসর্বদা সক্রিয় ভূমিকা পালন করে চলেছেন।




প্রতিবেদকঃ রমাকান্ত দেবনাথ

কোন মন্তব্য নেই