HeadLogo

রাজ্যের প্রবেশদ্বারে করোনা পজিটিভ রোগী, চুরাইবাড়িতে আরও সচেতনতা প্রয়োজন


সবুজ ত্রিপুরা, চুরাইবাড়ি প্রতিনিধি, ১৬মে: গোটা দেশের সাথে পার্বত্য রাজ্য ত্রিপুরাতেও করোনা পজিটিভ হু হু করে বাড়ছে। আজও ১১ জনের শরীরে ধরা পরল করোনা ভাইরাসের পজেটিভ।এর মধ্যে ৭জন বিএসএফ ৮৬ নম্বর বেটেলিয়ানে কর্মরত এবং ৪ জন সিভিলিয়ান পাওয়া গেছে রাজ্যের প্রবেশদ্বার চুড়াইবাড়ী গেইট থেকে। যার মধ্যে দুজন গাড়ী চালক, দুজন এসেছেন গৌহাটি থেকে। 
৪ জন সিভিলিয়ানের মধ্যে ২ জন যাত্রী যারা ইতিমধ্যে তেলিয়ামুড়া ও কমলপুরে হোম কোয়ারেইন্টাইনে রয়েছেন। এদের মধ্যে একজন পুরুষ বয়স ২৪ এবং আরেক জন মহিলা বয়স ২০। অপরদিকে বহিঃ রাজ্যের দুই চালককে চুরাইবাড়ি থেকে এম্বুলেন্স দিয়ে আগরতলার উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হয়েছে যাদের বয়স ৩২ এবং ২৩ বছর। দুজনে গাড়ি করে ওএনজিসির সামগ্রী নিয়ে এসেছিলেন। গাড়ি গুলির নাম্বার হল NL02Q/1391 এবং NL01AD/653, বর্তমানে চুরাইবাড়ি থানার পুলিশ দুটি গাড়িকে হটস্পট জুনে রেখে দিয়েছে। পাশাপাশি দুজন চালক বহিঃ রাজ্যের বাসিন্দা।

উল্লেখযোগ্য যে প্রতিদিন বহিঃরাজ্য থেকে ৮ নং আসাম আগরতলা জাতীয় সড়ক দিয়ে পন্যবাহী লড়ি, যাত্রীবাহী গাড়ি সহ বিভিন্ন জরুরী কালীন যান চলাচল করছে। যদিও ত্রিপুরার প্রবেশদ্বার চুড়াইবাড়ি গেইটে ত্রিপুরা স্বাস্থ্য দপ্তরের COVID-19 করোনা ভাইরাস স্ক্যানিং সেন্টার রয়েছে। সেখানে তাপমাত্রা থেকে শুরু করে লালা রসের নমুনা পরীক্ষা করার পর কারো শরীরে করোনা পজিটিভ সংক্রমণ আছে কিনা তা শনাক্ত করে রাজ্যে প্রবেশ করছেন। যদি কারো শরীরে করোনা ভাইরাসের পজিটিভ পাওয়া যায় তাহলে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করে স্বাস্থ্য দপ্তর। পাশাপাশি চালক ও যাত্রীদের জন্য কোয়ারেইন্টানের সুবন্দোবস্ত রয়েছে। 

তবু রাজ্যের প্রবেশদ্বারে আর একটু সচেতনতা ও আধুনিকতা অবলম্বন করলে হয়তো যাত্রী ও চালকদের অনেকটা সুবিধে হয় এবং করোনা ভাইরাস স্ক্যানিং করার জন্য দীর্ঘ লাইন হবে না। পাশাপাশি প্রতিটি গাড়ি স্যানিটেশন করারও দাবি উঠছে। কেননা যেসকল চালক ও যাত্রীদের শরীরের করোনা ভাইরাস পজেটিভ সংক্রমণ ধরা পড়ছে সেসকল চালক ও যাত্রীদের সংস্পর্শে আসা গাড়িতেও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ লেগে থাকতে পারে। সুতরাং প্রত্যেকটি গাড়ি সেনিটাইজেশন না করলে হয়তো গাড়ি থেকে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের অন্যান্য যাত্রী ও চালকরা সংক্রমিত হতে পারেন। এক কথায় বিপদজনক অবস্থানে থাকা রাজ্যের প্রবেশদ্বার চুরাইবাড়ির দিকে আরেকটু বেশী নজর রাখুক রাজ্য সরকার না হলে আগামী দিনে রাজ্যে করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে বলে অভিজ্ঞ মহলের দাবি।

তেলিয়ামুড়া প্রতিনিধির সংযোজনঃ ১১ জনের মধ্যে এক মহিলা তেলিয়ামুড়ার মহাকুমার মুঙ্গিয়াকামি ব্লকের উত্তর মহারানীর বাসিন্দা। ওই মহিলাকে নিয়ে যাওয়া হল রাজধানীতে। ১৪ তারিখ উনি গোহাটি থেকে বাড়ি আসেন। নমুনা সংগ্রহের পর তার দেহে ভাইরাস পজেটিভ আসে। আজ প্রশাসনের উদ্যোগে উত্তর মহারানী পুর তার নিজ বাড়ি থেকে আগরতলা নিয়ে  যাওয়া হয় । তার বাড়ির সদস্যদের কুয়ারেন্ট টাইনে নেওয়া হচ্ছে।





ছবিঃকিশোর রঞ্জন হোড়

কোন মন্তব্য নেই