HeadLogo

লকডাউনে, ঐতিহ্য রক্ষার প্রয়াসে ক্ষুদে শিল্পী - Sabuj Tripura News


সবুজ ত্রিপুরা
২৩ মে, ২০২০

বিশেষ প্রতিবেদন: বর্তমানে চলছে বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রকোপ। তারই জেরে সারা ভারতে চলছে লকডাউন। কিন্তু এই লকডাউনের ফলে একদিকে যেমন মানুষ কর্মহীন হয়েছে, তেমনি অনাহার-অর্ধাহারেও দিন গুজরান করছেন। লকডাউনের কারণে রাজ্যের প্রতিটি অংশে বিদ্যালয়গুলিও় একপ্রকার বন্ধ; ফলে স্কুলপড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীরাও গৃহবন্দী হয়ে দিন কাটাচ্ছে।


এমন চিত্র নজরে এল পশ্চিম ত্রিপুরা জেলার তেলিয়ামুড়া মহকুমার মুঙ্গিয়াকামি ব্লকাধীন কাঁকড়াছড়া এডিসি ভিলেজের হাজরাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের। স্কুল বন্ধ, তাই মেয়েরা পড়াশুনায় ব্যস্ত থাকার পরিবর্তে মায়ের শেখানো পাছড়া তৈরিতে ব্যস্ত। ওই বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী জানায় যে, লকডাউনে স্কুল বন্ধ এবং বইপত্রও এখনো হাতে পৌঁছেনি, তাই ঘরে বসে না থেকে মায়ের হাতে শেখানো  পাছড়া বোনার কাজটি সে করে যাচ্ছে।




রাজ্যের পার্বত্য এলাকাগুলোতে আজও তেমনভাবে উন্নয়নের  ছোঁয়া লাগেনি।  সে জায়গায় কাজহীন কর্মহীন  সব দিক দিয়ে পিছিয়ে পড়া পরিবারগুলি নিজেদের পরিধানের বস্ত্র নিজেরাই তৈরি করে। এগুলি বাজার থেকে ক্রয় করতে গেলে প্রায় দুই থেকে তিন হাজার টাকার প্রয়োজন। তাই তারা এখন থেকেই কাপড় বোনা শিখে একদিকে যেমন সময় কাটাচ্ছে, অন্যদিকে আর্থিকভাবে পরিবারকে সহায়তাও করছে।





শুধু তাই নয় এই প্রত্যন্ত অঞ্চলে অনেক এমন শিল্পী রয়েছে, যারা টাকা পয়সার অভাবে পড়াশোনার ধারে কাছেও পৌঁছতে পারে না এবং নিজেদের ঐতিহ্যের কাপড় তাঁতে বুনে নিজের ও পরিবারের কিছুটা হলেও আর্থিকভাবে অভাব-অনটন দূর করতে সাহায্য করে। এমন সব ক্ষুদে শিল্পীদের যদি আগামী দিনে সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া যায় তাহলে হয়তো বা তাদের প্রতিভা আরও বিকশিত হবে এবং তাদের পরিবারও আর্থিক দিক দিয়ে কিছুটা সচ্ছল হবে। এমনই ধারনা পোষণ করছেন শুভবুদ্ধি মহল।




প্রতিবেদক : সৌরভ পোদ্দার

কোন মন্তব্য নেই