HeadLogo

দেশের অর্থনীতিকে সামাল দিতে রিজার্ভ ব্যাংকের একগুচ্ছ ঘোষণা



সবুজ ত্রিপুরানিজস্ব প্রতিনিধি, ১৮ এপ্রিল : বর্তমান গোটা বিশ্বের অর্থনীতি কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। করোনাভাইরাসের সঙ্কটকে সামলাতে দেশে দফায় দফায় চলছে লকডাউন। এ রকম একটা পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার উপর ব্যাপক প্রভাব পড়ছে। এমন সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা যাতে ভেঙে না পড়ে তার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে  কেন্দ্রীয় সরকার । 


শুক্রবার সকালে করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস বেশ কিছু পদক্ষেপের কথা ঘোষণা করলেন। তার মধ্যে যেমন রয়েছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য আর্থিক প্যাকেজ, রিভার্স রেপো রেট কমানোর মতো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা। তবে তিনি এ দিন জানিয়েছেন  করোনা ভাইরাসের জেরে গোটা বিশ্বে যেখানে অর্থনীতি টালমাটাল অবস্থায় রয়েছে  সেখানে জি-২০ দেশগুলোর মধ্যে ভারতের আর্থিক বৃদ্ধির হার সবচেয়ে বেশি। 



রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস বেশকিছু   গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেন। যেমন এসআইডিবির জন্য ১৫ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ।নাবার্ডের জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ। মাইক্রো ফিন্যান্সের জন্য ৫০ হাজার কোটির প্যাকেজ।অপরিবর্তিত থাকছে রেপো রেট।আবাসন শিল্পে ১০ হাজার কোটির প্যাকেজ। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য ৫০ হাজার কোটির প্যাকেজ। পরে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে টাকার পরিমাণ বাড়তে পারে। যে হেতু এই ক্ষেত্রের সঙ্গে কর্মসংস্থানের সরাসরি যোগ রয়েছে, তাই কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তকে বড় পদক্ষেপ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। 


এছাড়া ও তিনি বলেন বড় ক্ষতির মুখে রয়েছে গাড়ি শিল্প। আইএমএফ কে ইতিমধ্যেই মহামন্দার পরিস্থিতির সঙ্গে তুলনা করেছেন তিনি। পাশাপাশি আইএমএফ আর্থিক বৃদ্ধিতে ধাক্কার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। 




ভারতের সম্ভাব্য আর্থিক বৃদ্ধির হার ১.৯ শতাংশ। ২০২১-২২ অর্থবর্ষে বৃদ্ধির সম্ভাব্য হার ৭.৪ শতাংশ। করোনা মোকাবিলায়  ব্যাঙ্কগুলিতে নগদের জোগান বাড়ানো হয়েছে।যাঁরা করোনা মোকাবিলায় সামনের সারির যোদ্ধা, তাঁদের কুর্নিশ জানান তিনি। । সর্বোপরি তিনি জানান করোনা মোকাবিলায় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক গোটা পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে।মানবিক স্বার্থে যা যা করা প্রয়োজন তা করা হবে বলে আশাব্যাক্ত করেন তিনি।




কোন মন্তব্য নেই