HeadLogo

আবারও সমাজদ্রোহীদের হাতে লাঞ্ছিত চিকিৎসক, এবার ঘটনা কদমতলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে


সবুজ ত্রিপুরা,
২০ মে, ২০২০

কদমতলা প্রতিনিধি : ডাক্তার নিগ্রহের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের কোঠর মনোভাব থাকা সত্ত্বেও থেমে নেই ডাক্তার নিগ্রহের ঘটনা। রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী ডাক্তার ও স্বাস্থ্য কর্মীদের নিরাপত্তা দেওার ব্যপারে বদ্ধপরিকর।কিন্তু সরকারের এই কোঠর মনোভাব থাকা স্বত্তেও সমাজদ্রোহীদের হাতে লাঞ্ছিত হতে হল উত্তর ত্রিপুরার কদমতলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ইনচার্জ ডাঃ অরুণাভ চক্রবর্তীকে।  


ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত সোমবার দুপুর ১২ টা নাগাদ রাজনগর পঞ্চায়েতের ৪ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নজরুল হক (ধলা মিয়া) এবং তার ছেলে এবাদুর রহমান মুখের মাক্স ছাড়া হাসপাতালে প্রবেশ করেলে ডাঃ অরুণাভ চক্রবর্তী তাদেরকে মাস্ক লাগানোর কথা বলেন। আর তাতেই ক্ষেপে যায় বাপ-বেটা, শুরু হয় অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ। এমনকি উনাকে প্রাণে মারার হুমকি দেয় বাপ-বেটার জুটি। তারা হুমকি দিয়ে বলে, দিল্লির ডাক্তাদের উপর যে ভাবে হামলা হয়েছে ঠিক সেইভাবে নাকি উনার উপরও তারা আক্রমণ করবে, পাথর ছুঁড়ে মারবে। এই সব ঘটনার দেখে সেই সময় উপস্থিত রোগী এবং স্বাস্থ্য কর্মীদের মনে ভয়ের সঞ্চার হয়। পরবর্তীতে ডাক্তারবাবু ঘটনাটি কদমতলা থানায় জানান এবং ডাক্তারবাবুর সাথে কথা বলে জানা যায়, এই মর্মে অপরাধীদের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলাও দায়ের করেন। এই ঘটনায় কদমতলাবাসী মনে ক্ষোভের সঞ্চার হয় এবং অপরাধী ধরে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি উঠে।




এখানে উল্লেখ্য যে, ডাঃ অরুণাভ চক্রবর্তী কদমতলাবাসীর কাছে খুব পরিচিত নাম। বর্তমানে করোনা মহামারীর সংকটময় পরিস্থিতিতে উনার ভুমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, কদমতলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আওতাধীন এলাকায় রয়েছে রাজ্যের প্রবেশদ্বার চুড়াইবাড়ি। আর কদমতলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ইনচার্জের দ্বায়িত্ব অর্পণ করা আছে উনার হাতে। প্রায় গত দুই মাস ধরে উনার নেতৃত্বে কদমতলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সকল ডাক্তার এবং স্বাস্থ্য কর্মীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন স্বাস্থ্য পরিষেবা বজায় রাখতে।   






এদিকে খবর লেখা পর্যন্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধে থানার বিশেষ কোন ভুমিকা লক্ষ করা যায় নি। বিগত কিছু দিন থেকেই কদমতলার আইন  শৃঙ্খলা ভেঙ্গে পড়েছে। চোরাচালান, মাদক দ্রব্য পাচার ইত্যাদি  বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্থানীয় জনগনের মনে থানার বড়বাবুর বিরুদ্ধে ক্ষোভের সঞ্চার হয়ে আছে। নিরপরাধীদের থানায় তুলে নিয়ে হয়রানির অভিযোগ এনে উনার বিরুদ্ধে স্থানীয় জনগণ জেলা পুলিশ সুপারের কাছেও লিখিত আকারে অভিযোগ করছেন। আর এ দিকে  সমাজদ্রোহীদের হাতে ডাক্তার লাঞ্ছনার ঘটনায় পর অপরাধীদের বিরুদ্ধে বড়বাবুর ভুমিকা নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয় জনগণ। এখনি যদি কদমতলার আইন শৃঙ্খলা উন্নতির জন্য কোন বড় পদক্ষেপ না নেওয়া হয়, তা হলে আগামী দিনে উত্তর ত্রিপুরার কদমতলা থানা এলাকা সমাজদ্রোহীদের অবাদ বিচরণ ভুমিতে পরিনত হবে বলে অভিজ্ঞ মহলের অভিমত।


কোন মন্তব্য নেই